মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

বিভিন্ন প্রকল্প

বিভিন্ন প্রকল্প

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীন বাস্তবায়িত বিভিন্ন প্রকল্প সমূহ

http://www.mowca.gov.bd/wp-content/themes/myMag/images/time.jpg); background-repeat: no-repeat;">January 21, 2014

০১। মহিলা ও শিশু ডায়াবেটিক, এন্ডোক্রিন মেটাবলিক হাসপাতাল - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে ১০০ শয্যাবিশিষ্ট মহিলা ও শিশু ডায়াবেটিস, এন্ডোক্রিন ও মেটাবলিক হাসপাতাল স্থাপনের মাধ্যমে মহিলা ও শিশু রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান।০২। নারী ও পুরুষের মধ্যে সমতার উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়ন প্রকল্প – এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে নারী ও মেয়ে শিশুরা যাতে প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার বিষয়ে সিদ্বান্ত গ্রহণ করতে পারে, সে জন্য নারীর ক্ষমতায়ন, নারী ও মেয়ে  শিশুর প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ দূর করা ও নারী-পুরুষ সমতার দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলার মাধ্যমে সামাজিক পরিবর্তনের সূচনা করা ।

 

০৩। Vulnerable Group Development for Ultra-Poor Project (VGDUP) - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে দুঃস্থ মহিলারা যাতে আত্মকর্মসংস্থানমূলক ও আয়বর্ধক কর্মকান্ডে নিয়োজিত হতে পারে এ লক্ষ্যে তাদের প্রশিক্ষণ ছাড়াও  নগদ ভাতা প্রদান, সম্পদ সরবরাহ, ও সঞ্চয় বৃদ্বিতে সহায়তা করা (Subsistence allowance, IGA Training, Productive Asset)

০৪। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে ৫টি বিভাগীয় শহরে ভৌত সুবিধাদি সৃষ্টিকরণ - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে নারীর বিরূদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধের লক্ষ্যে ৫ টি বিভাগীয় শহরে চলমান মহিলা সহায়তা কর্মসূচীর জন্য অফিস কাম  সেলটার হোম ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ। আশ্রয়হীন এবং অসহায় মহিলাদের নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার ব্যবস্থা করা এবং তাঁদের মৌলিক চাহিদা পূরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

০৫। নিম্নবিত্ত এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণীর কর্মজীবী মায়েদের শিশুদের জন্য দিবাযত্ন কর্মসূচী প্রকল্প - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত  শ্রেণীর কর্মজীবী মহিলাদের ছোট শিশুদের (৬ মাস থেকে ৬ বছর বয়স)  নিরাপদ দিবাকালীন সেবা  প্রদান করার জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন সিটিতে ১০টি ডে-কেয়ার কেন্দ্র স্থাপন করা ।

০৬। জেলা ভিত্তিক মহিলা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ (২য় পর্যায়) প্রকল্প - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে শিক্ষিত বেকার মহিলাদের আত্ম-কর্মসংস্থানের মাধ্যমে স্বনির্ভরতা অর্জনের ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করা। নারী সমাজকে মানব সম্পদে পরিনত করার লক্ষ্যে ধ্যানধারণাগত পরিবর্তনে উৎসাহ যোগানো এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি শিক্ষাদান।

০৭। ‘নগরভিত্তিক প্রান্তিক মহিলা উন্নয়ন’ প্রকল্প - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে আয় বর্ধনমূলক  ক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন ট্রেডে ২৭৬০০ নিম্ন আয়  সম্পন্ন  গরীব ও সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা। ৬টি বিভাগে ৪৬টি দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রস্থাপন। প্রশিক্ষিত মহিলাদের তৈরী পণ্য বাজারজাত করণের আউটলেট তৈরী করা।

০৮। শিশুর বিকাশে প্রারম্ভিক শিক্ষা (ইএলসিডি) প্রকল্প - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে ০-৫ বছর বয়সী শিশুদের পারস্পরিক যত্ন এবং শিশু বিকাশের অনুকূল নিরাপদ পরিবেশে প্রাক- শিক্ষা কেন্দ্র, বাড়িতে ও কমিউনিটিতে প্রাক-শিক্ষা কার্যক্রমে শিশুদের অংশ গ্রহণ এবং তাদের বুদ্ধি বৃত্তি, সামাজিক, ভাষাগত ও আবেগিক বিকাশ এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করার উপযোগী কার গড়ে তোলা । প্রকল্পের আওতায় Early Learning Development Standards (ELDS) এবং Early Childhood Development এর খসড়া প্রণয়ন করা হয়েছে। শীঘ্রই Policy Frame work চুড়ামত্ম অনুমোদন করা হবে।

০৯। সিসিমপুর আউটরীচ প্রকল্প - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে শিশুদের প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা প্রদান এবং সিসিমপুর নাটকের মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা বিষয়ে বিলবোর্ড প্রদর্শন। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা বিষয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টির জন্য রেডিও, টিভি-তে প্রচারনা। প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে শিক্ষকদের শিশুদের বিকাশ বিষয়ে প্রশিক্ষণ। প্রাক-প্রাথমিক শিশুর বিভিন্ন উপকরণ প্রস্ত্তত ও বিতরণ। প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সিসিমপুর নাটক প্রদর্শন। শিশুর অভিভাবককে শিশুদের লালন-পালন বিষয়ে প্রশিক্ষণ।

১০। বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর ৬টি জেলা কমপ্লেক্স ভবন নির্মান প্রকল্প - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর ৬টি জেলার নিজস্ব জমিতে সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক অবকাঠামো স্থাপন। শিশুর মেধা ও মনন বিকাশে সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে দেশী ও আন্তর্জাতিক সংযোগ স্থাপনে জেলার সিভিক পয়েন্ট হিসাবে সরকারী-বেসরকারী সংস্থা ও এনজিও, দেশী ও বিদেশী প্রতিষ্ঠানসমূহের কেন্দ্রবিন্দু হিসাবে কাজ করবে। প্রশিক্ষণ, লাইব্রেরী ও মিউজিয়াম স্থাপনের মাধ্যমে জেলায় শিশুর মেধা-মনন বিকাশের মাধ্যম হিসাবে জেলাসমূহে কার্যক্রম    বিসত্মৃত করা।

১১। পলিসি লিডারশীপ এ্যান্ড এ্যাডভোকেসী ফর জেন্ডার ইকুয়্যালিটি-২ (প্লাজ-২) প্রকল্প – এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে দারিদ্র বিমোচন ও টেকসই উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহকে সহায়তা প্রদান করা। বিশেষ করে নারীর সার্বিক অধিকার প্রতিষ্ঠা, জেন্ডার সমতাকরণ, ক্ষমতায়ন ও সামগ্রিক উন্নয়নে সহায়তা প্রদান করা।

১২। ক্যাপাসিটি বিল্ডিং ফর মনিটরিং চাইল্ড রাইটস – এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে শিশু সংক্রান্ত নীতির বিশ্লেষণ, কার্যকরী সমন্বয়, CRC রিপোর্টিং ও CRC অনুযায়ী শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠার বিষয়াদি পরিবীক্ষণের লক্ষ্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো শক্তিশালীকরণ।

১৩। এমপাওয়ারমেন্ট এ্যান্ড প্রটেকশন অব চিলড্রেন (ইপিসি) - এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে শিশুদের যৌন  নির্যাতন, হয়রানী  ও জেন্ডার বৈষম্যসহ  সকল  প্রকার  নির্যাতন প্রতিরোধ  এবং যৌন নিপীড়ন  হতে নারী  ও  শিশুকে রক্ষা  করার জন্য কার্যকরী  পদক্ষেপ  গ্রহন  করা । কিশোরী মেয়েদের সমসঙ্গী পদ্ধতিতে শিক্ষাদান  এবং  জীবন  দক্ষতা  ও  জীবিকা  অর্জনের  জন্য  প্রশিক্ষণ প্রদান।

১৪। নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রকল্প (২য় পর্ব) – এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি)’র মাধ্যমে শারীরিক নির্যাতন, যৌন নির্যাতন ও দগ্ধ মহিলাদের স্বাস্থ্যসেবা, পুলিশী সহায়তা, ডিএনএ পরীক্ষা, মানসিক কাউন্সেলিং এবং আশ্রয়সেবাসমূহ প্রদান করা হয়। দেশব্যাপী নির্যাতিতাদের সহায়তা করার জন্য পাঁচটি বিভাগীয় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে বিভিন্ন সমস্যা যেমন পিতৃত্ব অথবা মাতৃত্বের প্রমাণ, বিদেশে অধিবাসী হতে ইচ্ছুকদের প্রয়োজনীয় ডিএনএ পরীক্ষা অথবা বংশের ধারা প্রমাণ এবং বিভিন্ন দুর্যোগ ও দূর্ঘটনায় নিখোঁজ, মৃত মানুষের পরিচিতি উদ্ধার।

১৫। প্রমোশন অব লিগ্যাল এন্ড সোসাল এম্পাওয়ারমেন্ট অব উমেন ইন বাংলাদেশ (২য় পর্ব) – এই প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে ন্যায় বিচার ব্যবস্থায় মহিলাদের অধিকতর প্রবেশাধিকার সৃষ্টির লক্ষ্যে আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক পর্যায়ে জাতীয় এবং স্থানীয় প্রতিষ্ঠানসমূহের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা। সক্ষমতা বৃদ্ধি ও সংলাপের মাধ্যমে ন্যায় বিচার প্রাপ্তিতে নারীর প্রবেশাধিকার সৃষ্টি। নির্যাতন ও অপরাধ এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে নারীর প্রতি সংবেদনশীল কমিউনিটিভিত্তিক পুলিশী কার্যক্রম বাস্তবায়ন।